মঙ্গলবার, 10 অক্টোবর 2017 20:26

বুদ্ধিজীবীর ভেল্কিবাজি

লিখেছেন 
ভোট এবং নাম্বার দিনঃ
(0 জন ভোট দিয়েছেন)
	  	বুদ্ধিজীবীর ভেল্কিবাজি

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী


সুযোগ মতো নাটক করি
সাজাই পরিকল্পনা 
অর্থ লোভের ব্যবসা ফাঁদি সাজাই গুটি পারফেক্ট 
আমি হলাম বুদ্ধিজীবী 
হাল জামানার সিন্ডিকেট । 
নিজের মতো গপ্পো বানাই 
মুরগি ধরি হরদম 
গরম তেলে পাথর ভাজি মহান আমার সাবজেক্ট 
আমি হলাম বুদ্ধিজীবী 
হাল জামানার সিন্ডিকেট । 
অর্থ দিয়ে মানুষ কিনি 
লবণকে বানাই চিনি 
খ্যাপা মাথায় লাজুক হয়ে 
সৃষ্টি করি মতভেদ
আমি হলাম বুদ্ধিজীবী 
হাল জামানার সিন্ডিকেট ।
নিজের স্বার্থ উদ্ধার করে 
সটকে পড়ি খুশ দিলে 
যদি কোথাও সরাই খানায় নষ্ট নেশার খোঁজ মিলে
নিজের স্বার্থ রাখতে বলি সব ফরগেট 
আমি হলাম বুদ্ধিজীবী 
হাল জামানার সিন্ডিকেট ।
স্বার্থ দিয়ে ভক্ত বানায় 
চিন্তাবিদের রং ধরি 
বড় বড় আউলে বুলি উল্টো পথে হামাগুড়ি 
চোখ দুটো বড় করে খুঁজি আমি ইন্টারনেট 
আমি হলাম বুদ্ধিজীবী 
হাল জামানার সিন্ডিকেট ।
সত্যকে মিথ্যা বানাই 
দুর্নীতিকে আপনজন 
বিজ্ঞ মানুষ সাজতে গিয়ে মনুষত্বের সহমরণ 
কিংবা আলুর ভর্তা হয়ে দেশ ও জাতির অপহরণ 
ভুরি ভোজন করতে গিয়ে বাড়াই ভুঁড়ির মেদ
আমি হলাম বুদ্ধিজীবী 
হাল জামানার সিন্ডিকেট । 
মধ্যসত্বভোগী আমি 
বাজার দরে কারসাজি 
শেয়ার বাজার দরপতন 
আর চলে চালবাজি 
এতো সব করতে গিয়ে করি সব গুবলেট 
আমি হলাম বুদ্ধিজীবী 
হাল জামানার সিন্ডিকেট । 
একটু ভাবুন এদের নিয়ে 
করছে সমাজ কুলষিত
ফরমালিনে ডুবিয়ে এদের 
যায় কি করা দ্রবীভূত ?
© স্বত্ব সংরক্ষিত

64 বার পঠিত
অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর এ দীর্ঘদিন যাবত শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত আছেন। শিক্ষা ও গবেষণার ক্ষেত্রে তিনি যেমন অবদান রেখে চলেছেন তেমনি সৃষ্টিশীল লেখার ক্ষেত্রেও তাঁর পদচারণা। তিনি মনে করেন বিজ্ঞান চর্চা, শিক্ষা ও সংস্কৃতি একে অন্যের পরিপূরক। তিনি একাধারে শিক্ষাবিদ, গবেষক, গল্পকার, প্রাবন্ধিক, কবি, গীতিকার, নাট্যকার, সমাজ সংস্কারক ও সাংস্কৃতিক কর্মী। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দর্শনে বিশ্বাসী এই মানুষটির ছোটবেলা থেকেই লেখায় হাতেখড়ি। কৈশোর ও তারুণ্যে তিনি বাংলা একাডেমি, খেলাঘর, কঁচিকাচার মেলা সহ বিভিন্ন সংগঠনে কাজ করেছেন। এই সময় তাঁর প্রবন্ধ, কবিতা বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। প্রকৌশল বিদ্যা অধ্যায়নের সময় তিনি প্রগতিশীল কর্মী হিসেবে কাজ করে সহিত চর্চা করে গেছেন। এ সময় তাঁর লেখাগুলো বিশ্ববিদালয়ের ম্যাগাজিনে এখনও সংরক্ষিত আছে। এছাড়াও অনেকদিন ধরেই তিনি দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকা ও ম্যাগাজিনে লিখে চলেছেন। বাংলা ও ইংরেজি দুই সাহিত্যেই তাঁর সমান দক্ষতা রয়েছে। সমাজ, রাষ্ট্র, প্রকৃতি, বিজ্ঞান, শিক্ষা, পরিবর্তন, সম্ভাবনা ও মানুষ তাঁর লেখার মূল উপজীব্য বিষয়। তিনি একজন ভাল বক্তা। বিভিন্ন টিভি চ্যানেলের টক্ শো সহ বিভিন্ন সৃজনশীল অনুষ্ঠানে তাকে অতিথি হিসেবে দেখা যায়। ভারতরে প্রাক্তন কেন্দ্রীয় তথ্যমন্ত্রী অজিত কুমার পাঁজা কলকাতা দূরদর্শনের একটি প্রতিযোগিতায় তাঁর প্রেরিত প্রবন্ধে মোহিত হয়ে নিজ হাতে পুরস্কার তুলে দেন। অনুষ্ঠানটি সরাসরি সে সময় সম্প্রচারিত হয়। এই খবরটি আজকাল, সংবাদ, বাংলাবাজার সহ বিভিন্ন পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। এছাড়া তিনি ফিলিপিন্স, চীন, বি-টিভি সহ দেশ বিদেশের বিভিন্ন পুরুস্কারে ভূষিত হন। বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট ও বঙ্গবন্ধু প্রকৌশলী পরিষদের একজন কর্মী হিসেবে তিনি কাজ করে চলেছেন।

অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান চৌধুরী এর সাম্প্রতিক লেখা সমূহ

এই বিভাগে অনন্যা লেখাঃ « আমার ছোট্ট গাঁ বোকার দল »

মন্তব্য প্রদান করুন

(*) মন্তব্য প্রদান করার জন্য অত্যাবশ্যকীয় তথ্য. HTML code is not allowed.