শুক্রবার, 03 সেপ্টেম্বর 2021 01:39

নিয়ে এসেছে অফুরান ফজিলত মাহে রমজান নির্বাচিত

লিখেছেন
লেখায় ভোট দিন
(0 টি ভোট)
                নিয়ে এসেছে অফুরান ফজিলত মাহে রমজান


নিয়ে এসেছে অফুরান ফজিলত মাহে রমজান,
এসো সকলে মিলেমিশে করি আল্লাহর গুণগান!

নিয়ে এসেছে মাহে রমজান 
এক মাসের ফরজ রোজা,
এসো রোজা করি তারাবি পড়ি
করি হালকা পাপের বোঝা। 

রমজানে সৃষ্টিকর্তা দিয়েছেন 
জান্নাতের সকল দরজা খুলে, 
প্রতিটি ইবাদতে সত্তর গুণ...
সিয়াম সাধনায় লই ক্ষমা তুলে। 

নিয়ে এসেছে মাহে রমজান
মানুষের দিনযাপনের দলিল... 
শ্রেষ্ঠ ধর্ম গ্রন্থ দিলেন আল্লাহ 
কুরআন করেছেন নাজিল!

এই মাসেই বিধাতা করেছেন 
জাহান্নামের সকল দরজা বন্ধ,
এসো সকলে কাম-লোভ চাপা-
দিয়ে, দেহে আনি সুভাস গন্ধ। 

নিয়ে এসেছে অফুরান ফজিলত মাহে রমজান, 
গফুরুর রহিম দিবেন রোজাদারকে বিশেষ সম্মান। 

এই মাসেই মাহান পালনকর্তা 
শয়তানকে করেছে শৃঙ্খল বন্দি,
এসো সকলে মিলেমিশে, প্রতি 
নামাজ শেষে দুহাত তুলে কান্দি। 

নিয়ে এসেছে মাহে রমজান 
মহিমান্বিত লাইলাতুলকদর, 
হাজার মাসের চেয়ে শ্রেষ্ঠ রজনী 
এসো ইবাদত করে করি আদর। 

এই মাসে সিয়াম সাধনায় 
মুক্তি; কঠিন জাহান্নাম থেকে,
রহমান লক্ষ কোটি ক্ষমা 
মুমিনের জন্য দিয়েছেন রেখে।

এই মাসে সৎ কাজের প্রতিদান 
হয়, বহুগুণে বেড়ে যাওয়া...
রমজানে রোজাদার মুমিনগণের
হয়, হজের সাওয়াব পাওয়া।

নিয়ে এসেছে অফুরান ফজিলত মাহে রমজান 
রহমত বরকত-মাগফেরাত-নাজাতের আহবান। 
---------------------------------------------
৩০/০৪/২০২১
হ্নীলা, টেকনাফ, কক্সবাজার।            
            
124 বার পড়া হয়েছে সর্বশেষ হালনাগাদ বুধবার, 15 সেপ্টেম্বর 2021 15:56
শেয়ার করুন
ইদি আমিন

ইদি আমিন সদালাপী মিষ্টি ভাষী ও উদার মনের অধিকারী। তিনি শিশুকাল থেকে লেখালেখির সখ ছিলাে এবং তখন থেকেই লেখা চালিয়ে যান । তিনি গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলার দক্ষিণ বুড়াইল গ্রামে পহেলা জুলাই ১৯৭৬ সনে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম মরহুম খলিলুর রহমান, মাতার নাম মেহেরুন নেছা। তিনি ২০০০ইং সালে মাসুমা আকতারের সহিত বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। বর্তমানে তিনি গাইবান্ধা জেলার নশরৎপুর গণ উন্নয়ন কেন্দ্র (GUK) এ একজন উন্নয়ন কর্মী হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। তিনি দুই সন্তানের জনক। বড় মেয়ের বয়স ১৭ বৎসর, নাম ইসরাত আমিন ঈশিতা এবং ছেলের বয়স ৬ বৎসর, নাম মাহির লাবিব আমিন মাজ্জিন। স্ত্রী মাসুমা আমিন ফিরােজা তিনি একজন উন্নয়ন কর্মী ও গৃহিণী। তাঁর লেখা বিভিন্ন যৌথ কাব্যগ্রন্থসহ বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।

মন্তব্য করুন

Make sure you enter all the required information, indicated by an asterisk (*). HTML code is not allowed.